Home জাতীয় উবার-পাঠাও এর রাইড শেয়ারিং নিয়ে নানা অভিযোগ: কার্যকর সমাধান পাচ্ছেন না যাত্রীরা

উবার-পাঠাও এর রাইড শেয়ারিং নিয়ে নানা অভিযোগ: কার্যকর সমাধান পাচ্ছেন না যাত্রীরা

0

।। সুহাদা আফরিন ।।

অ্যাপে দেখা যায় এক চালকের ছবি, উবারের গাড়ি এলে দেখা যায় স্টিয়ারিং হাতে বসে আছেন অন্যজন। অ্যাপ বন্ধ করে পুরো টাকা নেওয়ার ফন্দি তো আছেই। এ ছাড়া ভিন্ন নম্বর থেকে ফোন দিয়ে নিজেদের উবারের লোক বলে পরিচয় দেওয়াসহ নানান ধরনের বাজে ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে রাইড শেয়ারিং সেবা গ্রহণকারীদের কাছ থেকে। কয়েকটি সেবা প্রতিষ্ঠানের কলসেন্টার থাকলেও উবারে সরাসরি ফোন করে তাৎক্ষণিক অভিযোগ করার সুযোগ না থাকায় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

স্বস্তির নিশ্বাসটুকু ফেলে দেওয়ার আগেই রাইড শেয়ারিং অ্যাপ নিয়ে একের পর এক অভিযোগ আসছে। বাংলাদেশে ২০১৬ সালে আন্তর্জাতিক রাইড শেয়ারিং সেবা উবারসহ দেশীয় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রাজধানীতে এ সেবা কার্যক্রম শুরু করে। কিছুদিন যেতে না যেতেই অভিযোগ আসতে থাকে অনেকের বিরুদ্ধেই।

আইরিন আহমেদ গত ১৭ সেপ্টেম্বর রাতে গ্রিন রোড থেকে কল্যাণপুর বাসস্ট্যান্ড যাওয়ার জন্য উবার ডাকেন। অ্যাপে রাজন নামের একজন চালকের ছবিসহ পরিচয় আসে। কিন্তু উবারের গাড়িটি এলে আইরিন দেখেন সেখানে সবুজ নামের আরেক চালক। আইরিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রথমে গিয়ে দেখি চালক আরেকজন। এরপর গাড়িতে চড়ার পর ওই চালক অ্যাপ বন্ধ করে দেন। চালুর জন্য বললে চালক বলেন ভাড়া যেটা এসেছে সেটাই দিয়ে দিতে। তিনি অ্যাপ চালু করেননি। উল্টো তর্ক করেছেন। ভাড়ার পুরোটাই চালকের পকেটে যায়। উবারকে তাঁর দিতে হয়নি।’ তিনি আরও অভিযোগ করেন, তাঁদের নামিয়ে দেওয়ার পর যাঁর নামে উবারে গাড়িটি রেজিস্ট্রেশন করা ছিল, সেই রাজন আইরিনকে ফোন করে নিজেকে উবারের লোক বলে পরিচয় দিয়ে দেখা করতে চান।

আইরিন সেদিন সঙ্গে সঙ্গে উবারের কাছে অ্যাপের মাধ্যমে লিখিত অভিযোগ জানান। তিন দিন পরে উবার থেকে তাঁকে ফোন করে পুনরায় অ্যাপে গিয়ে অভিযোগ জানাতে বলা হয়। চালকের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে, তা জানানো হবে বললেও এখনো জানানো হয়নি। তিনি বলেন, ‘এই চালক বেশ কয়েকটি অপরাধ করেছেন। সঙ্গে সঙ্গে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে আরও অনেকে ভুক্তভোগী হবেন। এ ছাড়া সবাই হয়তো জানেও না দেশে অভিযোগ জানানোর কোনো সরাসরি হেল্পলাইন নেই। নিজেদের উবারের লোক পরিচয় দিয়ে ফোন করে দেখা করে অনেকেই বিপদে পড়তে পারেন। আমাদের দেশের পরিপ্রেক্ষিতে হেল্পলাইন অবশ্যই থাকা উচিত।’

মাসখানেক আগে আতাউর রহমান রাতের বেলা উবার ডাকেন। তিনিও দেখেন, অ্যাপে ওঠা চালক ও তাঁকে নিতে আসা চালক এক ব্যক্তি নন। তখন তিনি জানতে চাইলে নিতে আসা চালক জানান, একজন রাতে চালান অন্যজন দিনে। আতাউর প্রথম আলোকে বলেন, ‘রাতের বেলা ঝুঁকি নিয়েই আমাকে যেতে হয়েছে। ওই চালকের পরিচয় তো আর জানি না।’ তিনি উবারের অ্যাপে অভিযোগ করলে উবার থেকে ফোন করে অভিযোগ শুনে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা জানাবেন বলে জানান। কিন্তু এখনো তাঁকে জানানো হয়নি। এ ছাড়া বলেন, উবারের সঙ্গেও যোগাযোগের কোনো উপায় নেই।

এ অভিযোগ পাঠাওসহ দেশীয় আরও কয়েকটি রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে রয়েছে। একই গাড়ি বা মোটরবাইক একজনের নামে রেজিস্ট্রেশন করা থাকলেও সেটা শেয়ার করে দুজন মিলে চালান। যাত্রীদের অভিযোগ, এতে নিরাপত্তা ঝুঁকি রয়েছে। অভিযোগের ব্যাপারে যাত্রীরা রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানের কাছে তাৎক্ষণিক সাড়া পাওয়ার আশা করেন। কিন্তু দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলোয় কলসেন্টারে অভিযোগ জানালেও ওই চালকের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়, তা জানানো হয় না। এ ছাড়া উবারে কলসেন্টার নেই। প্রতিটি অভিযোগের জন্যই তাঁরা অ্যাপের মাধ্যমে অভিযোগ জানাতে পরামর্শ দেন। কিন্তু এই সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কাছেও তাৎক্ষণিক কোনো সাড়া পাওয়া যায় না।

আরও এক ভুক্তভোগী জানান, তিনি নাখালপাড়া থেকে উবার ডেকেছেন, মহাখালীতে উবারের এক গাড়ি ম্যাপে দেখাচ্ছিল। কিন্তু ওই চালককে ফোন করা হলে তিনি বাড্ডা আছে বলে জানান। এ ছাড়া দুর্ব্যবহার ও যখন-তখন গাড়ি থেকে নেমে যেতে বলার অভিযোগও করছেন অনেকে।

রাইড শেয়ারিং সেবা যখন চালু হয়, তখন এ–সংক্রান্ত কোনো নীতিমালা ছিল না। চালুর কয়েক দিনের মধ্যে সরকার বিজ্ঞপ্তি দিয়ে উবারকে অবৈধ ঘোষণা করে। অবশ্য চাহিদার কথা চিন্তা করে সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে সরকার নীতিমালা করা উদ্যোগ নেয়। এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে ‘রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালা-২০১৭’ গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। সেখানে অনুচ্ছেদ চ–এর ৮ নম্বরে বলা হয়েছে, রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কলসেন্টার সপ্তাহে প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকতে হবে। কিন্তু উবারের কোনো কলসেন্টারই নেই এ দেশে।

এ ব্যাপারে উবারের কাছে জানতে চাইলে লিখিত বক্তব্যে উবার জানায়, কলসেন্টারের ব্যাপারে তারা কোনো মন্তব্য করবে না।

বাকি অভিযোগগুলোর বিষয়ে উবার বলে, এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা। তাদের কাছে অ্যাপের মাধ্যমে লিখিত অভিযোগ জানানোর পরামর্শ দেন। এ ছাড়া উবার জানায়, যাত্রী প্রয়োজনে বাংলাদেশ সরকারের জরুরি সেবা ৯৯৯–এর কল করে সাহায্য নিতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.