Home অন্যান্য পঞ্চগড়ে ইজতিমা নিষিদ্ধসহ কাদিয়ানীদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ‘অমুসলিম’ ঘোষণা করতে হবে: জমিয়ত

পঞ্চগড়ে ইজতিমা নিষিদ্ধসহ কাদিয়ানীদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ‘অমুসলিম’ ঘোষণা করতে হবে: জমিয়ত

1
বাম দিক থেকে- জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ-এর সভাপতি আল্লামা আব্দুল মুমিন এবং মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী। -ফাইল ফটো।

উম্মাহ রিপোর্ট: পঞ্চগড়ে আহুত কাদিয়ানীদের ইজতিমা নিষিদ্ধকরণসহ অবিলম্বে সরকারীভাবে কাদিয়ানীদেরকে ‘অমুসলিম’ ঘোষণার দাবি জানিয়েছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ।

দলের সভাপতি আল্লামা আব্দুল মুমিন শায়েখে ইমামবাড়ি ও মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী আজ (সোমবার) গণমাধ্যমে দেওয়া এক যৌথ বিবৃতিতে এই দাবি জানিয়ে বলেন, মির্জা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী খতমে নবুওয়াত অস্বীকার করে নিজেকে মিথ্যা নবীর দাবি করে। তাই তার অনুসারীদের পক্ষে নিজেদেরকে মুসলিম দাবি করার কোনই সুযোগ নেই। কারণ, খতমে নবুওয়াতের উপর দৃঢ় বিশ্বাসস্থাপন করা মুসলিম হিসেবে পরিচিত হওয়ার জন্য অত্যাবশক। হযরত মুহাম্মদ (সা.)কে ‘শেষ নবী’ হিসেবে বিশ্বাস করা তথা খতমে নবুওয়াতের উপর ঈমান আনয়ন মুসলিম হওয়ার জন্য ‘ট্রেড মার্ক’ স্বরূপ।

যৌথ বিবৃতিতে জমিয়ত নেতৃদ্বয় আরো বলেন, কাদিয়ানীরা অমুসলিম পরিচিতি নিয়ে অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মতো নাগরিক অধিকার ভোগ করায় আমাদের কোন আপত্তি নেই। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টানদের মতো তারাও অমুসলিম ঘোষিত হয়ে নাগরিক অধিকার ভোগ করুক। কিন্তু তারা অমুসলিম হওয়া সত্ত্বেও মুসলিম পরিচিতি ও ইসলামী পরিভাষা ব্যবহার করে স্বল্পশিক্ষিত ও সাধারণ মুসলমানদেরকে ধোঁকা দিয়ে ঈমানহারা করে যাবে, এটা মেনে নেওয়ার সুযোগ নেই। তাদের এমন প্রতারণা চলতে থাকলে দেশের কোটি কোটি নবীপ্রেমি তৌহিদী জনতা জোরালো প্রতিরোধ গড়ে তুলে যে কোন ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে দ্বিধা করবে না।

বিবৃতিতে জমিয়ত সভাপতি ও মহাসচিব আরো বলেন, কাদিয়ানী ইস্যুতে রাষ্ট্রের জন্য বিবাদ মীমাংসার সহজ এবং গঠনমূলক উপায় হলো, অবিলম্বে কাদিয়ানী সম্প্রদায়কে রাষ্ট্রীয়ভাবে ‘অমুসলিম সম্প্রদায়’ ঘোষণা দিয়ে তাদের ধোঁকা ও প্রতারণার পথ বন্ধ করে দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা নিশ্চিত করা। সাথে সাথে কাদিয়ানীদের জন্য যে কোন ইসলামী পরিভাষা ব্যবহারও নিষিদ্ধ করতে হবে। কারণ, কাদিয়ানীরা মিথ্যাভাবে নিজেদেরকে মুসলিম দাবি ও ইসলামি পরিভাষা ব্যবহার করে একদিকে সাধারণ মুসলমানদেরকে ঈমানহারা করার মিশন পরিচালনা করছে, অন্যদিকে দেশের বিদ্যমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে দেশকে অশান্তির মুখে ঠেলে দিতে ষড়যন্ত্র করছে।