Home অন্যান্য সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনায় আরআরএফ’র ভূমিকা অপরিসীম: গেট টুগেদার অনুষ্ঠানে হাব মহাসচিব

সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনায় আরআরএফ’র ভূমিকা অপরিসীম: গেট টুগেদার অনুষ্ঠানে হাব মহাসচিব

1
আরআরএফের গেট টুগেদার আরএফএফ’র গেট-টুগেদার অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন হাব মহাসচিব এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম। ছবি- সংগৃহীত।

হজ্ব এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেছেন, বর্তমানে বাংলাদেশের হজ ব্যবস্থাপনায় প্রভূত উন্নতি সাধিত হয়েছে। এখন পত্রিকার পাতা খুললে হজ ব্যবস্থাপনা নিয়ে আগের মতো অনিয়ম ও দুর্নীতি-সংক্রান্ত নেতিবাচক প্রতিবেদন খুব-একটা দেখা যায় না।

তিনি আরও বলেন, হজ ব্যবস্থাপনার সামগ্রিক উন্নতির নেপথ্যে ধর্ম মন্ত্রণালয় ও হাবসহ সংশ্লিষ্ট সবার পাশাপাশি রিলিজিয়াস রিপোর্টার্স ফোরাম (আরআরএফ) সদস্যদের ভূমিকাও অপরিসীম। তারা হজ ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন ভুলত্রুটি তুলে ধরে প্রতিবেদন প্রকাশ ও প্রচার করায় তা ধর্ম মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট সবার নজরে এসেছে। ভুলত্রুটি সংশোধন করে হজ ব্যবস্থাপনা ইতিবাচক পরিবর্তন আনা সম্ভব হয়েছে।

শুক্রবার রাজধানীর স্থানীয় একটি হোটেলে রিলিজিয়াস রিপোর্টার্স ফোরামের (আরআরএফ) গেট টুগেদার ২০১৯ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আরআরএফ সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ ভুইয়ার সভাপতিত্বে ও উবায়দুল্লাহ বাদলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ হজযাত্রী হাজী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি ড. আব্দুল্লাহ আল নাসের।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন হাবের কোষাধ্যক্ষ মাওলানা ফজলুর রহমানসহ আরআরএফ সদস্যরা।

হাব মহাসচিব বলেন, গত দুই বছর আগে হাজিদের ট্রলি ব্যবস্থা তুলে দেয়া হয়েছে। এখন যার যার প্রয়োজন অনুযায়ী ট্রলিব্যাগ কিনে নিয়ে যাচ্ছেন হজযাত্রীরা। এ নিয়ে কোনো নেতিবাচক প্রতিবেদনও নেই। অথচ একসময় হাজিদের কাছ থেকে আড়াই হাজার টাকা নেয়া হলেও মাত্র ৭০০ থেকে ৮০০ টাকার ট্রলিব্যাগ দেয়া হয়েছে। যা বিমানবন্দরে যাওয়ার আগেই নষ্ট হয়েছে। আরআরএফ সদস্যরা এসব অনিয়ম তুলে ধরে প্রতিবেদন করায় আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছি। এ জন্য আরআরএফ সদস্যদেরও অবদান কম নয়।

ড. আবদুল্লাহ আল নাছের বলেন, হজ ব্যবস্থাপনায় কোনো ধরনের অনিয়ম সহ্য করা হবে না। আরআরএফ সদস্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা হজযাত্রীদের হয়রানি বন্ধে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরি করে অসাধু হজ ব্যবসায়ীদের মুখোশ খুলে দেবেন। এতে আপনাদেরও নাগরিক দায়িত্বপালন করা সম্ভব হবে। -বিজ্ঞপ্ত।

অ্যাসাঞ্জ: স্বচ্ছতার হিরো বনাম রাষ্ট্রের শত্রু?

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.