Home অন্যান্য সারা দেশে বিক্ষোভ পালিত: আন্দোলন ছাড়া খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে না

সারা দেশে বিক্ষোভ পালিত: আন্দোলন ছাড়া খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে না

0

ডেস্ক রিপোর্ট: সুশাসন ছাড়া দেশে শান্তি ফিরে আসবে না মন্তব্য করে গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী সরকার প্রধানের উদ্দেশে বলেছেন, আপনি আর একটা সংলাপ ডাকুন। পরিষ্কার করে বলেন, খালেদা জিয়ার জামিনের ব্যাপারে কোনো বাধা দেবেন না। স্পষ্ট করে বলে দিন, আপনি নাক গলাবেন না। বিচারককে বিচারের মতো চলতে দিন। তারপরে দেখি, খালেদা জিয়ার মুক্তি হয় কি না?

গত শনিবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ আয়োজিত ‘বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে’ এক মানববন্ধনে ডা: জাফরুল্লাহ এসব কথা বলেন।

মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহকারী মহাসচিব মাওলানা শুয়াইব আহমদ, জিয়া নাগরিক ফোরামের (জিনাফ) লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, শাহবাগ থানা কৃষকদলের সভাপতি এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ নির্বাচনে প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে যেভাবে ভোট ডাকাতি করেছে এতে পুলিশ ও প্রশাসনের দাবি মেটাতে গিয়ে ডিসি ভার্সেস এসপির খেলা দেখবেন প্রধানমন্ত্রী। এবার প্রশাসন যখন বলবে আমাদের হেলিকপ্টার চাই, অমুক তমুক চাই সে দাবি মেটাতে হিমশিম খাবেন তিনি। মানববন্ধনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমতুল্লাহ, কৃষকদলের শাহজাহান স¤্রাটসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতে গেছেন বাংলাদেশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ট্রেনিং দিতে, যে দেশে পানির চেয়ে গরুর মূত্রের দাম বেশি। মানুষের চেয়ে পশুর দাম বেশি। যে দেশে পশুর জন্য মানুষ হত্যা করছে। সে দেশে কী ট্রেনিং হতে পারে? আমরা বুঝতে পারছি। তাদের মগজ ধোলাই করে বাংলাদেশ নিয়ে আসা হবে। এতে হিতে বিপরীত হয়ে আপনাকেই খেসারত দিতে হবে।

তিনি বিএনপির উদ্দেশে বলেন, গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হলে ভারতের যে চক্রান্ত, তার বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। আর এটা কোনো সহজ কাজ নয়। আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। তিনি প্রসঙ্গত বলেন, ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট ও প্রেস ক্লাবে আর হাতি ঘোড়া মাইরেন না।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরো বলেন, আমি বিএনপির নেতাদের বারবার বলেছি আসছি। গত শুক্রবারও প্রস্তাব করেছি, আপনাদের কে রাস্তায় থাকতে হবে। আমি খুশি হতাম বিএনপির এক হাজার মহিলা নেত্রী যদি আজকে দুই ঘণ্টার জন্য রাস্তায় বসে থাকত। তারপর ৫০টা ট্রাক নিয়ে সারা ঢাকা শহরে ঘুরত। আর একটা স্লোগান দিত গণতন্ত্র চাই, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই। এটা করতে পারলেই দেশে সুশাসন আসবে আর সুশাসন ছাড়া বাংলাদেশে শান্তি ফিরে আসবে না।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনি আপনার দলের মিটিং অবশ্যই করবেন। তবে আপনাদের সিনিয়র নেতাদের সাথে নিয়ে করবেন। ভুলভ্রান্তি সবারই হয়। তবে ধৈর্য ধরতে হবে। কারণ, আপনি বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ। আপনি বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীকে ধৈর্য ধরতে হয়। তাড়াহুড়া করবেন না। আপনার দিকে অনেকেই চেয়ে আছে। আপনার সঠিক সিদ্ধান্তে আন্দোলন গড়ে উঠবে। আর আন্দোলন গড়ে না উঠলে সহজে বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন না।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের আকাশে অশনি সঙ্কেত দেখা দিয়েছে। তার একটি হলো- ১২ লাখ রোহিঙ্গা, তাদের মধ্যে পাঁচ লাখ যুবক-যুবতী যাদের জীবনের আশা নেই। তাদের ভাসানচরে রেখে জঙ্গিদের রুখতে পারবেন না। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড করে জঙ্গি দমন করতে পারবেন না। বিচারের নামে অবিচার করে জঙ্গি দমন করতে পারবেন না। তাই বিচারকদের বলছি আপনাদেরকেও একদিন জনতার কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে, সেই সময় আর বেশি দূরে নেই।

রংপুর অফিস জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা ও প্রহসনের মামলায় এক বছর ধরে কারাবন্দী করে রাখার প্রতিবাদে রংপুরে সমাবেশ করেছে মহানগর ও জেলা বিএনপি।

গতকাল দুপুরে নগরীর গ্রান্ড হোটেল মোড়ের দলীয় কার্যালয়ে মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন- মহানগর সাধারণ সম্পাদক কারমাইকেল কলেজের সাবেক জিএস শহিদুল ইসলাম মিজু, জেলা সেক্রেটারি রইচ আহমেদ প্রমুখ।

ময়মনসিংহ অফিস জানায়, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপি। শনিবার নগরীর নতুনবাজার দলীয় কার্যালয়ের সামনে এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়। জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক এ কে এম শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তৃতা করেন- ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ।

সমাবেশে যুগ্মসম্পাদক কাজী রানা ও শাহ শিব্বির আহমদ বুলু, জেলা দফতর সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ হান্নান খান, প্রচার সম্পাদক কায়কোবাদ মামুন, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম মাহবুবুল আলম, কোষাধ্যক্ষ রতন আকন্দ, যুবদলের জেলা সভাপতি রোকুনুজ্জামান সরকার রোকন, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট দিদারুল ইসলাম রাজুসহ জেলা ও মহানগর বিএনপি এবং অঙ্গসংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদাতা জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনগুলোর উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শনিবার বেলা ১১টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের মৌড়াইলস্থ জেলা বিএনপির সভাপতির বাসভবনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, জেলা বিএনপির সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো: জহিরুল হক খোকন জহিরের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন- জেলা বিএনপির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট গোলাম সারওয়ার ভূঁইয়া খোকন, যুগ্মসম্পাদক অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান মঞ্জু, এ বি এম মোমিনুল হক, আলী আজম, মুনির হোসেন, নিয়ামুল হক, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদ ও যুগ্ম সম্পাদক বুলবুল আহমেদ মুছা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.