Home জাতীয় ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র ইসলামবিদ্বেষী প্রচারণার নিন্দা ও বিচার দাবি করেছেন আল্লামা কাসেমী

‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র ইসলামবিদ্বেষী প্রচারণার নিন্দা ও বিচার দাবি করেছেন আল্লামা কাসেমী

জমিয়ত মহাসচিব শায়খুল হাদীস আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ নামের একটি সংগঠন অধিকাংশ জাতীয় পত্রিকায় ‘সন্দেহভাজন জঙ্গি সদস্য সনাক্তকরণের (রেডিক্যাল ইন্ডিকেটর) নিয়ামকসমূহ’ নামে যে বিজ্ঞাপন প্রচার করেছে, তাতে গভীর উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়ে এই বিজ্ঞাপন প্রচারের সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী। তিনি বলেন, এই কথিত সংগঠনটির আহ্বায়ক পীযুষ বন্দোপাধ্যায়। সুতরাং এই বিজ্ঞাপন প্রচারণার মাধ্যমে ইসলাম অবমাননা ও ধর্মীয় উস্কানীর সৃষ্টির অপচেষ্টার দায়ে তাকেও বিচারের আওতায় আনতে হবে।

আজ এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, কথিত ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’-এর বিজ্ঞাপনে মুসলমানদের জন্য আবশ্যক পালনীয় ইসলামী বিধান দাড়ি রাখা, টাখনুর উপর কাপড় পরাসহ বেশ কিছু লক্ষণকে জঙ্গি লক্ষণ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। পোস্টারে উল্লিখিত জঙ্গি লক্ষণের মধ্যে আরো রয়েছে- ধর্ম চর্চা ও নামাযের প্রতি ঝোঁক; গায়ে হলুদ, জন্মদিন পালন, গান-বাজনা থেকে নিজেকে গুটিয়ে রাখা ইত্যাদি।

তিনি বলেন, একজন সাধারণ মুসলমানের জীবনে যে সমস্ত নিয়ম ও আচরণ মেনে চলতে হয়, এই বিজ্ঞাপনে সেগুলোকেও জঙ্গী আচরণ বলে চিহ্নিত করার ধৃষ্টতা দেখানো হয়েছে। মূলত: এই বিজ্ঞানের মাধ্যমে শুধু ইসলাম অবমাননা করা হয়নি, বরং ইসলামের বিধি-বিধানের প্রতি সমাজে ঘৃণা ছড়ানোর অপচেষ্টাও চালানো হয়েছে এবং মুসলমানদেরকে এসব বিধান মেনে চলতে নিরুৎসাহিত করার চেষ্টাও হয়েছে।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, এটা পরিষ্কার যে সম্প্রীতি বাংলাদেশ নাম দিয়ে অসম্প্রীতি ও ইসলাম বিদ্বেষ ছড়িয়ে এই দেশ থেকে ইসলাম নির্মূল, হিন্দুত্ববাদের প্রসার এবং বিদেশী অপশক্তির আধিপত্যবাদ প্রতিষ্ঠাই ছিল তাদের উদ্দেশ্য। আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর বিভিন্ন সংস্থা ও সরকারের দায়িত্ব এদের সকল কর্মকাণ্ড খতিয়ে ষড়যন্ত্রকারী ও মদদদাতাদেরকে চিহ্নিত করা এবং ধর্মীয় অবমাননা ও উস্কানী সৃষ্টির জন্য এই সংগঠনের সাথে জড়িতদেরকে কঠোর বিচারের আওতায় আনা। অন্যথায় কোটি কোটি তৌহিদী জনতা ইসলামের মর্যাদা এবং দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থে এসব ষড়যন্ত্রকারীদেরকে উৎখাত করতে মাঠে নামতে দ্বিধা করবে না। -বিজ্ঞপ্তি।

ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাতের কারণে পীযুষকে গ্রেফতার করতে হবে: মাওলানা ইউনুছ আহমাদ