Home জাতীয় জমিয়ত মহাসচিবের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করে দোয়া চাইলেন এরশাদ

জমিয়ত মহাসচিবের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করে দোয়া চাইলেন এরশাদ

উম্মাহ রিপোর্ট: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ গতকাল (২ জুন) রবিবার জমিয়ত মহাসচিব শায়খুল হাদীস আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (হাফি.)এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন। তিনি বিকেল সাড়ে ৫টায় রাজধানীর অন্যতম বিখ্যাত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেন। এ সময় তাঁকে আন্তরিক অভ্যন্থনা জানান জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র যুগ্মমহাসচিব মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী।

এরপর জাপা চেয়ারম্যান আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমীর সাথে সাক্ষাত করতে তাঁর কার্যালয়ে গমন করেন। সালাম, মুসাফাহা ও প্রাথমিক কুশল বিনিময় শেষে আল্লামা কাসেমী জাপা চেয়ারম্যানকে বারিধারা মাদ্রাসা পরিদর্শেনে আসার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। এরশাদ এ সময় বলেন, আমার বাসার কাছেই এত সুন্দর ও সুশৃঙ্খল এত বড় একটি মাদ্রাসা আছে, আমি জানতামই না। মাদ্রাসাটির সুন্দর ও সুশৃঙ্খল ক্যাম্পাস দেখে আমার অনেক ভাল লেগেছে।

তিনি বলেন, এ ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে এগিয়ে নেওয়া দরকার। এখন তো বাংলাদেশের যে অবস্থা, কোন মুসলিম অধ্যুষিত দেশে আছি, নাকি হিন্দু দেশে আছি পার্থক্য করতে পারি না। এটা জাতি হিসেবে আমাদের জন্য অত্যন্ত লজ্জার ও হতাশার। নৈতিকতা ও স্বকীয়তাবোধ হারিয়ে ফেললে একটা জাতি মর্যাদাপূর্ণভাবে টিকে থাকে না। আস্তে আস্তে তারা গোলামে পরিণত হয়।

আল্লামা কাসেমীকে উদ্দেশ্য করে এরশাদ বলেন, কয়েক মাস থেকেই আমি অসুস্থ। কখন মহান রবের ডাক আসে, জানি না। আপনি অনেক বড় পর্যায়ের আলেম। আমি এসেছি, আমার জন্য দোয়া চাইতে। আমি যেন ঈমানের সাথে দুনিয়া থেকে বিদায় নিতে পারি দোয়া করবেন। আমার অতীতের ভুল ও গুনাহের ক্ষমার জন্যও আপনারা সকলে দোয়া করবেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী, মাওলানা মুনির আহমদ, মাওলানা আব্দুল্লাহ মাসউদ, মাওলানা হাবীবুল্লাহ প্রমুখ।

জমিয়ত মহাসচিবসহ উপস্থিত উলামায়ে কেরাম এরশাদের সুস্বাস্থ ও হায়াতে তাইয়্যেবার জন্য দোয়া করেন। এ সময় জমিয়ত মহাসচিব এরশাদকে একটি তাসবীহ হাদিয়া দেন এবং যথাসম্ভব বেশি বেশি ইবাদত-বন্দেগীর পাশাপাাশি তাওবা এবং সবসময় তাসবিহ পাঠ ও কুরআন তিলাওয়াতের উপদেশ দেন। প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা এরশাদ জমিয়ত মহাসচিবের কার্যালয়ে অবস্থান করেন। এখান থেকে বিদায় নিয়ে বেরোনোর পর তিনি হুইল চেয়ারে মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ভালভাবে দেখেন। এরপর সন্ধ্যা ৬টায় বারিধারা মাদ্রাসা ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (হাফি.)এর মাহে রমযান যেভাবে কাটে!

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.