Home সোশ্যাল মিডিয়া আমিরাত আমীরের নাম ইতিহাসের পাতায় গাদ্দারদের তালিকায় লেখা থাকবে

আমিরাত আমীরের নাম ইতিহাসের পাতায় গাদ্দারদের তালিকায় লেখা থাকবে

1

।। মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া ।।

ছবি দেখে হতবাক হয়েছেন? হতবাক হওয়ার কিছু নেই! আমি কিন্তু অবাক হইনি। কেন হয়নি- তাহলে শুনুন।

আলখেল্লাধারী যে আরবকে দেখছেন, এর পুর্ব পুরুষরাই তো শায়খুল হিন্দকে গ্রেফতার করে ইংরেজদের হাতে তুলে দিয়েছিল। শায়খুল হিন্দ ভারতবর্ষের স্বাধীনতার জন্য আন্তঃদেশীয় লড়াইয়ের পরিকল্পনা প্রণয়ন করে হেজাজ গিয়েছিলেন। তখন এদের পূর্বপুরুষ শরীফ হোসাইন শায়খুল হিন্দকে আরবের পবিত্র ভূমি থেকে বন্দি করে ইংরেজদের হাতে তুলে দিয়ে মুসলিম জাতির সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল। আরব গাদ্দার এবং ভারতীয় বেঈমানদের কারণেই তো শায়খুল হিন্দের সে পরিকল্পনা সফল হতে পারেনি। শায়খুল হিন্দের সেই পরিকল্পনা সফল হতে পারলে ভারতীয় এই উপমহাদেশ থেকে ইংরেজরা বহু আগেই বিতাড়িত হতে বাধ্য হতো।

গুজরাটের কশাই খ্যাত মোদীকে গত ২৪ আগস্ট আমিরাত সরকার তার দেশের সর্বোচ্চ পুরস্কার দিয়েছে। একইভাবে বাহরাইন সরকারও সে দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা দিয়েছে। এই আমিরাত সরকারই সমগ্র মুসলিম উম্মাহকে হতভম্ব করে দিয়ে ভারতীয় সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর পর ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়া ভারত সরকারকে সমর্থন দিয়েছে।

যে মুহূর্তে মোদী কাশ্মীরীদের নির্বিচারে হত্যা করছে। রাতের আঁধারে মুসলিম যুবতীদের ধর্ষণ করা হচ্ছে। বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছে। যুবকদের দলে দলে গ্রেফতার করছে। কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন প্রত্যাহার করে নিয়েছে। কাশ্মীরিদের সুরক্ষামূলক বিশেষ আইনসমূহ বাতিল করেছে। ভারতের বিভিন্ন স্থানে নিরাপরাধ মুসলিমদের পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে চলছে।

যে সময়ে মুসলমানদের রক্তে মোদীর হাত এখনো ভিজে আছে। এসময় কশাই মোদীকে সর্বোচ্চ পদক প্রদান কিসের আলামত? তাকে পদক দিয়ে মুসলমানদের সাথে গাদ্দরী ছাড়া কি আর হতে পারে। আমিরাতের আমীরের নাম ইতিহাসের পাতায় গাদ্দারদের তালিকায় লেখা থাকবে। অন্যান্য গাদ্দার আরব নেতারাও ইতিহাসের কঠোর বিচার থেকে বাঁচতে পারবে না। ইতিহাস কোন গাদ্দারকে ছাড় দিয়ে রচিত হয় না। ধিক, এসব গাদ্দারদের প্রতি।

লেখক: মুহতামিম, জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ, মিরপুর, ঢাকা, সহসভাপতি- বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক) এবং যুগ্মমহাসচিব- জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ।