Home রাজনীতি বোয়ালমারি উপজেলা জমিয়তের বৈঠক অনুষ্ঠিত

বোয়ালমারি উপজেলা জমিয়তের বৈঠক অনুষ্ঠিত

0
বোয়ালমারী উপজেলা জমিয়তের বৈঠকে বক্তব্য দিচ্ছেন খতীবে বাঙ্গাল আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব।

ফরিদপুর বোয়ালমারী উপজেলা জমিয়তের এক বৈঠক গত ২৮ অক্টোবর সোমবার ছিতার বাজার মাদ্রাসাতুল ইহসান মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র কেন্দ্রীয় সহসভাপতি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্রখ্যাত মুফাসসিরে কুরআন খতীবে বাঙ্গাল আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব।

দলের কেন্দ্রীয় অর্থসম্পাদক ও রাজধানীর জামিয়া মাদানিয়া বারিধারার মুহাদ্দিস মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমীর সভাপতিত্বে বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- দলের কেন্দ্রীয় সদস্য মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন, বোয়ালমারী উপজেলা জমিয়তের সভাপতি মুফতি আমির হোসাইন, সহসভাপতি হাফেজ মাওলানা আসাদুজ্জামান, সেক্রেটারী মাওলানা মুহাম্মদ ইলিয়াস, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ মাওলানা আনোয়ার হোসাইন, দাদপুর ইউনিয়ন জমিয়তের সভাপতি মাওলানা আব্দুল আজিজ, বোয়ালমারি উলামা পরিষদের সেক্রেটারী মাওলানা আনোয়ারুল করিম, মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল হালিম প্রমুখ।

বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব ভারতীয় উপমহাদেশের শত বৎসরের প্রাচীন ইসলামী রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের গুরুত্ব, তাৎপর্য এবং দেশের স্বাধীনতা ও গণমানুষের অধিকারের বিষয়ে অবদানের কথা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বৃটিশদের জবর দখল থেকে ভারতীয় উপমহাদেশকে স্বাধীন করার আন্দোলনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের যে গৌরবময় ভূমিকা রয়েছে, সেটা ইতিহাসে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে।

তিনি বলেন, জমিয়তের প্রতিষ্ঠাতা নেতাগণ বিশেষ করে হযরত শায়খুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদুল হাসান, শায়খুল ইসলাম মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী এবং দারুল উলূম দেওবন্দ ও দেওবন্দী ওলামাগণের গৌরবময় ভূমিকা ভারতীয় উপমহাদেশের সকলকে আজীবন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণে রাখতে হবে। তাঁরা শুধু বৃটিশদের কাছ থেকে ভারতীয় উপমহাদেশকে স্বাধীন করে দেননি, বরং গণমানুষের অধিকার, ইনসাফ, সুবিচার ও সহনশীল সমাজ গঠনে বিশাল গৌরবময় ভূমিকা ও অবদান রেখে গেছেন।

খতীবে বাঙ্গাল দলীয় নেতাকর্মীদেরকে উদ্দেশ্য করে আরো বলেন, সুশাসন ও সুশিক্ষার অভাব এবং ধর্মীয় নিয়ম-নীতি না মেনে চলার কারণে দেশের সর্বত্র অনিয়ম ও দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়েছে। হাজার রকমের অপরাধ আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবনকে জর্জরিত করে তুলেছে। বাংলাদেশের মানুষ দেশে ইসলামী হুকুমত কায়েমের মাধ্যমে প্রকৃত ইনসাফ, সুশাসন ও সুবিচার প্রতিষ্ঠিত হোক, মনেপ্রাণে এটা চায়। বর্তমান দু:সহ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য মানুষ প্রতিনিয়ত আল্লাহর দরবারে ফরিয়াদ জানাচ্ছেন। সাধারণ মানুষের এই প্রত্যাশাকে সহজেই দেশে প্রতিষ্ঠা করতে হলে এখন সবচেয়ে জরুরী হলো উলামায়ে কেরামের দৃঢ় ও ঐক্যবদ্ধ নেতৃত্ব দেওয়া। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সৎ ও দক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে জনগণের এই প্রত্যাশা পুরণের লক্ষ্যে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে।

আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব স্থানীয়ভাবে দলকে আরো সুসংহত ও ঐক্যবদ্ধ হয়ে কৌশলী পরিচালনার লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট দিক-নিদের্শনা দিয়েও বক্তব্য রাখেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী বলেন, জনগণকে আস্থায় নিতে হলে এবং দূর্নীতি মুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে হলে জমিয়ত নেতাকর্মীদেরকে প্রতিকুল পরিবেশেও কৌশল ও বুদ্ধিমত্তার সাথে কাজ করে যেতে হবে। মু’মিন মুসলমানগণ কখনোই প্রতিকূলতায় দ্বীনি ও সেবামূলক কাজে হাল ছেড়ে দেন না।

তিনি বলেন, সাফল্য পেতে হলে অবশ্যই দলের প্রতিটি কর্মীকে শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে এবং সর্বাবস্থায় রেজায়ে মাওলাকে সামনে রেখে ত্যাগী মানসিকতা নিয়ে কাজ করে যেতে হবে। বান্দার কাজ চেষ্টা ও সাধনা করে যাওয়া। সফলতা দানের মালিক আল্লাহ। দলের প্রতিটি নেতাকর্মী একনিষ্ঠ হয়ে কাজ করে যেতে সক্ষম হলে ইনশাআল্লাহ সফলতা আসবেই। -বিজ্ঞপ্তি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.