Home রাজনীতি কণ্ঠরোধ করা হলে উগ্রবাদ ও জঙ্গিবাদের উদ্ভব হয়: মির্জা ফখরুল

কণ্ঠরোধ করা হলে উগ্রবাদ ও জঙ্গিবাদের উদ্ভব হয়: মির্জা ফখরুল

0
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ডেস্ক রিপোর্ট: হলি আর্টিজান মামলার রায়ে বিএনপি সন্তুষ্ট বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ (শুক্রবার) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে কৃষিবিদ জাবেদ ইকবাল স্মরণ সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এগ্রিকালচারিস্ট’স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (এ্যাব)  এ স্মরণ সভা আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল বলেন, এ রায়ে বিএনপি সন্তুষ্ট। এ রায়কে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। কিন্তু সমস্যা অন্য জায়গায়। যদি কথা বলার সুযোগ না থাকে, মানুষের কণ্ঠ রুদ্ধ করে দেয়া হয়, তাহলে সমাজ ও রাষ্ট্রে এ ধরনের উগ্রবাদ ও জঙ্গিবাদের উদ্ভব হয়। গত ১২ বছর ধরে তারা যে জোর করে ক্ষমতায় আছে এবং কাউকে কথা বলতে দিচ্ছে না, সে জন্যই এসব সমস্যার উদ্ভব হচ্ছে।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পর আমাদের নেত্রী সংবাদ সম্মেলন করে জাতীয় ঐক্যের কথা বলেছিলেন। তিনি পরিষ্কার করে বলেছিলেন, এই সংকট উত্তরণে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গড়ে তুলতে হবে জাতীয় ঐক্য।

এদিকে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আগামী ৫ ডিসেম্বর চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন না হলে আন্দোলনের ডাক দেবে বিএনপি। ৫ ডিসেম্বর জামিন না হলে বুঝতে হবে শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপের কারণে তা হয়নি। আর যদি তাই হয়, তাহলে ৫ ডিসেম্বরের পর এদেশে এক দফা আন্দোলন হবে। আর তা হবে স্বৈরাচার ও ফ্যাসিস্ট সরকার পতনের আন্দোলন।

আজ (শুক্রবার) জাতীয় প্রেসক্লাবে খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও তারেক রহমানের সাজা বাতিলের দাবিতে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

বিচার বিভাগ স্বাধীন হলে খালেদা জিয়াকে কারাগারে যেতে হতো না উল্লেখ করে খন্দকার মোশারফ বলেন, বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। তিনি উঠতে পারেন না। নিজে দাঁড়াতে পারেন না। সর্বোচ্চ আদালতে যদি আমরা ন্যায়বিচার না পাই, তাহলে আমাদের সামনে সরকারের পতন ঘটানো ছাড়া আর কোনো বিকল্প থাকবে না। সরকার পতন ঘটিয়েই আমাদের নেত্রীকে মুক্ত করতে হবে। এ আন্দোলনের জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

অন্যদিকে, বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেনসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে অন্য দুই জনের নাম জানা যায়নি।

আজ (শুক্রবার) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভা শেষে বের হওয়ার পথে তাদের আটক  করা হয়। এরআগে  বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের মূল ফটকের সামনে থেকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অব. হাফিজউদ্দিন আহমেদ ও  যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। যদিও কয়েক ঘণ্টা পর তারা জামিনে ছাড়া পান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.