Home জাতীয় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, সহাবস্থান ও শান্তির স্বার্থে অবিলম্বে ‘ইসকন’ নিষিদ্ধ করুন: আল্লামা বাবুনগরী

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, সহাবস্থান ও শান্তির স্বার্থে অবিলম্বে ‘ইসকন’ নিষিদ্ধ করুন: আল্লামা বাবুনগরী

0
হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। ফাইল ছবি- উম্মাহ।

ইন’আমুল হাসান ফারুকী: হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, ইসকন মুসলিম বিদ্বেষী চরম সাম্প্রদায়িক ও উগ্রবাদি মতাদর্শে বিশ্বাসী সংগঠন। এই সংগঠনের পেছনের ইহুদীবাদি ইসরাইল ও আন্তর্জাতিক ইসলামবিদ্বেষী শক্তির হাত রয়েছে । বাংলাদেশের বিদ্যমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুন্ন এবং সর্বস্তরে সহাবস্থান, শৃঙ্খলা ও শান্তি বজায় রাখতে অবিলম্বে বিতর্কিত এই চরমপন্থী সংগঠন নিষিদ্ধ করতে হবে।

গতকাল ৯ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম বোয়ালখালী থানাধীন জামিয়া ওয়াহিদিয়া মাদ্রাসার ২দিন ব্যাপী ইসলামী মহাসম্মেলনের প্রথম দিনের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সম্মেলনে আল্লামা বাবুনগরী সাংবিধানিকভাবে কাদিয়ানীদেরকেও অতিসত্বর অমুসলিম ঘোষণা করার দাবি এবং নরওয়েতে পবিত্র কুরআন পুড়ানোর ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

ইসকন প্রসঙ্গে আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, তারা আমাদের কোমলমতি শিশুদের প্রসাদ খাইয়ে জয় শ্রী রাম স্লোগান দিয়ে মুসলমানদের ঈমানী চেতনায় আঘাত করেছে৷
দেশব্যাপী বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে তারা।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, ইসকনের সূদুর প্রসারী চক্রান্তের একটি হচ্ছে, তারা হিন্দু ছেলেদের দাড়ি রাখতে বলবে, লম্বা জামা পরিয়ে মাদ্রাসায় ভর্তি করাবে৷ অতঃপর মাদ্রাসার ভিতরে ফেতনা সৃষ্টি করবে।

আল্লামা বাবুনগরী প্রমাণস্বরূপ বলেন, আমি যখন বাবুনগর মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করি, তখন একটা ছেলে আমার কাছে ‘উলুমুল হাদীস’ পড়তে আসে। আমি তার চেহারায় কোনো নূর দেখতে পাইনি। তখনই আমার সন্দেহ হয়৷ তারপর অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে, এই ছেলেটি খতনাও করেনি। সে উগ্রবাদী হিন্দু সংগঠন ইসকনের সদস্য।

আল্লামা বাবুনগরী মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আপনারা খুব যাচাই বাছাই করে ছাত্র ভর্তি করাবেন। উগ্রবাদী হিন্দু সংগঠন ইসকন যেন কোনোভাবেই মাদ্রাসার ভিতরে ফেতনা সৃষ্টি করতে না পারে, সেদিকে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহবান জানান হেফাজত মহাসচিব।

বাবরি মসজিদের প্রসঙ্গ টেনে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, ৫০০ বৎসরের ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদকে মোঘল আমলের রাষ্ট্রপ্রধান এমনকি বৃটিশ সরকার এবং তৎপরবর্তীকালে ভারতের স্বাধীনতার পর থেকে অনেক হিন্দু রাষ্ট্রপ্রধানসহ নেতৃস্থানীয় হিন্দুরাও বাবরি মসজিদকে মসজিদ হিসেবে মেনে নিলেও গুজরাটের কসাই উগ্রবাদী হিন্দু মোদি সরকার বাবরি মসজিদকে রাম মন্দির বানানোর হিন্দুত্ববাদী উগ্র রায় পাশ করে।

আল্লামা বাবুনগরী হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, বাবরি মসজিদ যদি ভেঙ্গে মন্দির বানানো হয়, তাহলে মোদি সরকারের গদি ভেঙে চুরমার হয়ে যাবে। খোদার গজব নেমে আসবে মোদি সরকারের উপর।

আল্লামা বাবুনগরী আগামী প্রজন্মের যুবক-তরুণ সমাজকে শপথ করিয়ে বলেন, আমরা শান্তিতে বিশ্বাসী। আমরা জ্বালাও-পোড়াও ভাঙচুরে বিশ্বাসী নই। তবে আমরা ইসলাম ও মুসলমানদের উপর যে কোন হুমকি ও আঘাতের জবাব দিতে দ্বিধা করবো না।

তিনি বলেন, ইসলাম ও মুসলমানদের ইজ্জত সম্মান রক্ষার্থে যদি রক্তের প্রয়োজন হয়, রক্ত দিবেন। জীবন দিতে হলে জীবন দিয়ে হলেও ইসলাম ও মুসলমানদের ইজ্জত সম্মান রক্ষা করবেন। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে বিপদ ও হুমকিমুক্ত রাখবেন। দেশের বিদ্যমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও সহাবস্থান বজায় রাখতে কাজ করে যাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.