Home গল্প-উপন্যাস ১৪ ফেব্রুয়ারী কর্মী সম্মেলনে সফলের লক্ষ্যে ফরিদপুর জেলা জমিয়তের ব্যাপক প্রস্তুতি

১৪ ফেব্রুয়ারী কর্মী সম্মেলনে সফলের লক্ষ্যে ফরিদপুর জেলা জমিয়তের ব্যাপক প্রস্তুতি

0

উম্মাহ প্রতিবেদন: আগামি ১৪ ফেব্রুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিতব্য শতবর্ষী প্রাচীনতম ইসলামী রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সম্মেলন সফলের লক্ষ্যে ফরিদপুর জেলা জমিয়ত ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

গতকাল (৪ ফেব্রুয়ারী) মঙ্গলবার বেলা ১১টায় ফরিদপুর শহরের জামিয়া আরাাবিয়া শামসুল উলূম মাদ্রাসায় জেলা জমিয়তের দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দের এক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় দুই শতাধিক নেতা শরীক হন। বৈঠকে ফরিদ জেলা নেতৃবৃন্দসহ জেলার ৯টি উপজেলার দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দ শরীক হন।

ফরিদপুর জেলা জমিয়তের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য মুফতি কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে বৈঠকে প্রধান অতিথি হিসেবে শরীক ছিলেন কেন্দ্রীয় জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ মাওলানা নাজমুল হাসান।

তিনি বলেন, আগামী ১৪ ফেব্রয়ারি রাজধানী ঢাকা’র সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিতব্য দলের কেন্দ্রীয় কর্মী সম্মেলনকে যে কোন মূল্যে সর্বাত্মক সফল করতে ফরিদপুর জেলা জমিয়তের প্রতটি নেতাকর্মীকে একযোগে ত্যাগী মানসিকতা নিয়ে কাজ করে যেতে হবে। এ ক্ষেত্রে সব ধরনে ত্যাগ কোরবানীর জন্য দলের সকল নেতাকর্মীকে প্রস্তুত থাকতে হবে।

বৈঠকে উপস্থিত ফরিদপুর জেলা জমিয়ত নেতৃবৃন্দের একাংশ।

তিনি বলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম আমাদের আকাবির দেওবন্দী বুযূর্গ আলেমদের রেখে যাওয়া আমানত। এই আমানত রক্ষায় আমাদের সকলকে আন্তরিক মনোযোগী হতে হবে।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র কেন্দ্রীয় অর্থ-সম্পাদক মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী ও সহকারী মহাসচিব মাওলানা সানাউল্লাহ মাহমূদী।

মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী বলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম আল্লাহর যমীনে আল্লাহ’র বিধিবিদ্ধ নেজাম প্রতিষ্ঠার মহান লক্ষ্য-উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই কাজ করছে। দেশের সর্বস্তরে ইনসাফ, সমতা, সুবিচার, গণমানুষের ন্যায্য অধিকার এবং সহনশীল ও শান্তিপূর্ণ শক্তিশালী সমাজ ও দেশ গড়াই আমাদের লক্ষ্য। জমিয়তের প্রতিটি কর্মীকে দলের জন্য কাজ করার সময় এসব উদ্দেশ্য স্মরণে রাখতে হবে। ইনশাআল্লাহ, এতে প্রতিটি কাজ, আত্মত্যাগ ও চেষ্টা পরকালের জন্য নাজাতের উসীলা হবে।

তিনি বলেন, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী রাজধানী ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য জমিয়তের কেন্দ্রীয় কর্মী সম্মেলনকে যে কোন বাধাবিপত্তি মোকাবেলা করে ব্যাপকভাবে সফল করতে হবে। এ জন্য বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার জমিয়তের সকল নেতাকর্মীকে এখনই এই লক্ষ্যে ব্যাপক গণসংযোগসহ প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করে দিতে হবে। আমি আশা করি, ফরিদপুর থেকে অন্তত: ২০ বাস নেতাকর্মীর বহর যেন কর্মী সম্মেলনে যোগদান করে, সেই প্রস্তুতি ও লক্ষ্য নিয়ে এখন থেকেই কাজ শুরু করে দিলে এটা কঠিন কিছু হবে না। তিনি ফরিদপুর জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সকল নেতাকর্মীকে পরস্পর কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে একমাত্র আল্লাহর জমিনে আল্লাহর নেজাম প্রতিষ্ঠার মহান লক্ষ্য-উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে কাজ করে যাওয়ার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানান।

সহকারী মহাসচিব মাওলানা সানাউল্লাহ মাহমূদী ভারতীয় উপমহাদেশের শত বৎসরের প্রাচীন ইসলামী রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের গুরুত্ব, তাৎপর্য এবং দেশের স্বাধীনতা ও গণমানুষের অধিকারের বিষয়ে অবদানের কথা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বৃটিশদের জবর দখল থেকে ভারতীয় উপমহাদেশকে স্বাধীন করার আন্দোলনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের যে গৌরবময় ভূমিকা রয়েছে, সেটা ইতিহাসে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে।

তিনি বলেন, জমিয়তের প্রতিষ্ঠাতা নেতাগণ বিশেষ করে হযরত শায়খুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদুল হাসান, শায়খুল ইসলাম মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী এবং দারুল উলূম দেওবন্দ ও দেওবন্দী ওলামাগণের গৌরবময় ভূমিকা ভারতীয় উপমহাদেশের সকলকে আজীবন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণে রাখতে হবে। তাঁরা শুধু বৃটিশদের কাছ থেকে ভারতীয় উপমহাদেশকে স্বাধীন করে দেননি, বরং গণমানুষের অধিকার, ইনসাফ, সুবিচার ও সহনশীল সমাজ গঠনে বিশাল গৌরবময় ভূমিকা ও অবদান রেখে গেছেন।

মাওলানা সানাউল্লাহ মাহমূদী ফরিদপুর জেলা ও ৯ উপজেলার নেতৃবৃন্দের প্রতি আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারীর কর্মী সম্মেলন ব্যাপক সফল করতে ঢাকায় ফরিদপুর থেকে উল্লেখযোগ্য নেতাকর্মীর অংশগ্রহণ নিশ্চিতের লক্ষ্যে এখন থেকে কাজ শুরুর আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে মুফতি কামরুজ্জামান উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে ফরিদপুর জেলা ও ৯টি উপজেলায় দলের সার্বিক কার্যক্রম ও সাংগঠনিক তৎপরতার চিত্র তুলে ধরেন। তিনি আশ্বস্ত করে বলেন, ফরিদপুর জমিয়তের সকল নেতাকর্মী ইনশাআল্লাহ এখন থেকেই কেন্দ্রীয় কর্মী সম্মেলন ব্যাপকভাবে সফল করতে কাজ শুরু করে দিবে। ইনশাআল্লাহ, ফরিদপুর থেকে আমরা বড় ধরণের গাড়ি বহর নিয়ে সম্মেলনে যোগদান করবো।

বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর জেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইসমাইল, সহসভাপতি হাফেজ কবীর আহমদ, হাফেজ মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন, মুফতি ইকবাল হোসাইন, মাওলানা আব্দুল মতিন, মুফতি আবুল বাশার, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি আব্দুল কাইউম, মুফতি আবু সাঈদ, মুফতি জুবায়ের আহমদ, মাওলানা আমিনুল ইসলাম, মাওলানা আবুল হাসান, বোয়ালমারী উপজেলা জমিয়তের সভাপতি মুফতি আমীর হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইলিয়াস, প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক মাওলানা আনোয়ারুল করীম, হাফেজ আসাদুজ্জামান, মাওলানা আব্দুল হালিম, মাওলানা মুহিউদ্দীন, মাওলানা আমিনুল ইসলাম, মুফতি আকরাম হোসাইন, মুফতি কুতুব উদ্দীন, হাফেজ আনোয়ার হোসাইন, মাওলানা ফরীদ উদ্দীন, মাওলানা বশীর উদ্দীন, মাওলানা শহীদুল হাসান, মাওলানা আসাদুজ্জামান, মাওলানা আব্দুস সামাদ, মাওলানা আবুল খায়ের প্রমুখ।

ফরিদপুর জেলা দায়িত্বশীলদের বৈঠকে জেলা কমিটিকে আরো শক্তিশালী করতে বর্ধীত আরো কমিটিতে মেধাবী ও দক্ষ কিছু সদস্য যুক্ত করেন। এছাড়া আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিতব্য কর্মী সম্মেলন সফলের জন্য মাঠ পর্যায়ে ব্যাপক প্রচারণা ও প্রস্তুতি সম্পর্কে উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে পরামর্শ করে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.