Home মহিলাঙ্গন বোরকা কটাক্ষের জবাবে তসলিমাকে ধুয়ে দিলেন এ আর রহমান কন্যা খাদিজা

বোরকা কটাক্ষের জবাবে তসলিমাকে ধুয়ে দিলেন এ আর রহমান কন্যা খাদিজা

0

ভারতের খ্যাতিমান সঙ্গীত পরিচালক এ আর রহমানের কন্যা খাদিজা রহমান এবং বাংলাদেশের বিতর্কিত নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিনের মধ্যে গত কদিন ধরে এক উত্তপ্ত বাকযুদ্ধ চলছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

খাদিজা রহমানের বোরকা পরা নিয়ে গত সপ্তাহে এই সর্বশেষ দফা বাকযুদ্ধের সূচনা করেছেন অবশ্য তসলিমা নাসরিন। তবে এবার এই আক্রমণের মুখে খাদিজা আর নিশ্চুপ থাকেননি, নিজেই শক্ত ভাষায় তসলিমা নাসরিনের আক্রমণের জবাব দিয়েছেন।

খাদিজার বোরকা এবং নেকাবে আবৃত মুখের ছবি টুইট করে তসলিমা লিখেছিলেন, “এ আর রহমানের সঙ্গীত আমি খুবই পছন্দ করি। কিন্তু যখনই আমি তার কন্যাকে দেখি, আমার দমবন্ধ হয়ে আসে। একটি সংস্কৃতিবান পরিবারের শিক্ষিত নারীও যে এরকম মগজ ধোলাইর শিকার হতে পারে, সেটি খুবই পীড়াদায়ক।”

তসলিমা নাসরিনের এই টুইট সাংঘাতিকভাবে ক্ষুব্ধ করে খাদিজা রহমানকে। তিনি এর উত্তরে ইনস্টাগ্রামে একের পর পোস্টে শক্ত ভাষায় তসলিমার আক্রমণের পাল্টা জবাব দিয়েছেন।

একটি পোস্টে তিনি মন্তব্য করেন, “তসলিমার যদি এতই দমবন্ধ লাগে তার উচিৎ বাইরে গিয়ে তাজা বাতাসে শ্বাস নেয়া।”

বোরকা নিয়ে বিতর্ক

‘স্লামডগ মিলিওনেয়ার’ ছবির এক দশক পূর্তি উপলক্ষে আয়োজন করা অনুষ্ঠানের মঞ্চে এ আর রহমান ও তাঁর কন্যা খাদিজা রহমান। ছবি- সংগৃহীত।

খাদিজা রহমানের বোরকা পরা নিয়ে ভারতে এটাই প্রথম বিতর্ক নয়। গত বছরও সোশ্যাল মিডিয়ায় এ নিয়ে বিতর্কের ঝড় বয়ে গিয়েছিল। হিন্দুত্ববাদি ও ইসলামবিদ্বেষীরা তাঁর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। অবশ্য, খাদিজাকেও বিপুল সংখ্যক নাগরিক সমর্থন করে সমালোচনাকারীদের কড়া জবাব দেয়। এমনকি, খাদিজার সমর্থনে এগিয়ে এসেছিলেন বাবা এ আর রহমান।

কন্যা খাদিজার বোরকা পরাকে সমর্থন করে তিনি তখন একটি ছবি টুইট করে লিখেছিলেন, ‘পোশাক বেছে নেয়ার স্বাধীনতা’ সবার আছে।

তার টুইট করা সেই ছবিটিতে ছিলেন এ আর রহমানের স্ত্রী, দুই মেয়ে এবং ভারতের বিশিষ্ট শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির স্ত্রী নীতা আম্বানি। ছবিতে সবার মুখ দেখা গেলেও খাদিজার মুখ ছিল পুরো বোরকা এবং নেকাবে ঢাকা।

গেল বছর খাদিজা নিশ্চুপ থাকলেও এবার তিনি তার নীরবতা ভেঙ্গেছেন তসলিমা নাসরিনের ব্যক্তিগত আক্রমণের জবাবে।

‘নীরবতাকে অজ্ঞতা বলে ভেবো না’

ইনস্টাগ্রামে খাদিজা রহমান আগুনের শিখার একটি ছবি পোস্ট করেন, তার নীচে লেখেন কারসন কোলহফ বলে একজনের উদ্ধৃতি: “আমার নীরবতাকে অজ্ঞতা বলে ভুল করো না, আমার নিস্তব্ধতাকে ধরে নিও না সম্মতি কিংবা আমার উদারতাকে দুর্বলতা বলে।”

এরপরে তিনি লিখেছেন, “যাদের দম বন্ধ হয়ে আসছে বলে মনে হচ্ছে, তারা বাইরে গিয়ে তাজা বাতাসে শ্বাস নিন।”

এরপর খাদিজা আরেকটি পোস্ট দেন তসলিমা নাসরিনের টুইটের স্ক্রীনশটসহ। এবার তিনি লিখেন, “এক বছর পার হয়নি, এর মধ্যে আবার এই বিষয় নিয়ে কথা চলছে। দেশে এখন কত কী ঘটছে, অথচ লোকের সব চিন্তা যেন এক টুকরো কাপড় নিয়ে যেটি একজন নারী পরতে চায়। আমি আসলেই চমকে যাচ্ছি।”

তিনি আরও লিখেছেন, “যতবার এই বিষয়টি নিয়ে কথা হয়, আমার মনের ভেতর আগুন জ্বলতে থাকে এবং আমার অনেক কিছু বলতে ইচ্ছে করে। গত এক বছরে আমি অন্য এক আমাকে আবিস্কার করেছি, যাকে আমি আগে কখনো দেখিনি। আমি দুর্বল হবো না কিংবা যে জীবন আমি বেছে নিয়েছি সেটি নিয়ে আমার কোন অনুতাপ নেই। আমি যা করছি তা নিয়ে আমি সুখী এবং গর্বিত। আমি যা, সেভাবেই যারা আমাকে মেনে নিয়েছেন তাদের ধন্যবাদ।”

আরেক পোস্টে খাদিজা সরাসরি তসলিমা নাসরিনকে সম্বোধন করে লিখেছেন, “প্রিয় তসলিমা নাসরিন, আমার পোশাক দেখে যে তোমার দমবন্ধ হয়ে আসে, সেজন্যে আমি দুঃখিত। আমার কিন্তু দমবন্ধ হয় না বরং আমি যা বিশ্বাস করি তার জন্য আমি গর্বিত এবং নিজেকে আমার আরও বলীয়ান মনে হয়। আমার পরামর্শ হচ্ছে, সত্যিকারের ‘নারীবাদ’ কি জিনিসে তা দয়া করে গুগলে সার্চ করে দেখ। নারীবাদ মানে অন্য নারীকে আক্রমণ করা নয়, তাদের বাবাকে বিতর্কে টেনে আনা নয়।”

তসলিমা নাসরিন যে অনুমতি ছাড়া তার ছবি পোস্ট করেছেন সেজন্যেও খোঁচা দিয়ে তিনি লিখেছেন, “আমার তো মনে পড়ছে না আমার ছবি তোমার কাছে পাঠিয়েছিলাম বলে।”

‘আমি কী পরবো তা আমার স্বাধীনতা’: এ আর রাহমান কন্যার সাফ জবাব!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.