Home রাজনীতি রাজশাহী জেলা জমিয়তের ১৮ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন

রাজশাহী জেলা জমিয়তের ১৮ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন

0

উম্মাহ প্রতিবেদক: শতবর্ষী প্রাচীনতম ইসলামী রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র রাজশাহী জেলার ১৮ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

গত (১৪ মার্চ) শনিবার সকাল ১০টায় রাজশাহী মহানগরীর রাবেয়া বসরী মাদ্রাসা মিলনায়তনে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে এক বৈঠকে এই কমিটি গঠন করা হয়। এতে রাজশাহী জেলার দলীয় নেতাকর্মী ও বিশিষ্ট উলামায়ে কেরাম শরীক ছিলেন।

মাওলানা ইমরান উদ্দীনের সভাপতিত্বে বৈঠকে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র সহসভাপতি খতীবে বাঙ্গাল আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় অর্থ-সম্পাদক মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী।

১৮ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে যৌথভাবে মাওলানা ইমরান উদ্দীন ও মাওলানা আব্দুল জলীলকে আহবায়ক এবং মাওলানা নাইমুল হাসানকে সদস্য সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- যুগ্ম-আহবায়কমাওলানা শরীফুল ইসলাম, সদস্য, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ, মাওলানা নেসারুদ্দীন, মাওলানা আবু তালহা, মাওলানা আব্দুল মুমিন, মাওলানা শফিকুল ইসলাম, আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম, আলহাজ্ব টিপু সুলতান, আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান, আলহাজ্ব বদিউজ্জামান, তারেক হোসেন বকুল, হাফেজ মাওলানা সুলতান মাহমূদ, হাফেজ মাওলানা নূর ইসলাম, মাওলানা রেজাউল করীম এবং ‍মুহাম্মদ শফিকুল হেনা প্রমুখ।

বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব বলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম আমাদের পূর্ববতী দেওবন্দী বুযূর্গ আলেমদের রেখে যাওয়া আমানত। এই আমানত রক্ষায় আমাদের সকলকে আন্তরিক মনোযোগী হতে হবে।

তিনি আরো বলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম আল্লাহর যমীনে আল্লাহ’র বিধিবিদ্ধ নেজাম প্রতিষ্ঠার মহান লক্ষ্য-উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই কাজ করে যাচ্ছে। দেশের সর্বস্তরে ইনসাফ, সমতা, সুবিচার, গণমানুষের ন্যায্য অধিকার এবং সহনশীল ও শান্তিপূর্ণ শক্তিশালী সমাজ ও দেশ গড়াই আমাদের লক্ষ্য। জমিয়তের প্রতিটি কর্মীকে দলের জন্য কাজ করার সময় এসব উদ্দেশ্য স্মরণে রাখতে হবে। ইনশাআল্লাহ, এতে প্রতিটি কাজ, আত্মত্যাগ ও চেষ্টা পরকালের জন্য নাজাতের উসীলা হবে।

আল্লামা জুনায়েদ আল-হাবীব নবগঠিত রাজশাহী আহবায়ক কমিটির সদস্যদের প্রতি উদ্দেশ্য করে বলেন, দলের এসব মহান লক্ষ্য-উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে খুলুসিয়্যাতের সাথে কাজ করে যান। ইনশাআল্লাহ, এরউত্তম জাযা পরকালে আল্লাহ তাআলা দান করবেন।

তিনি বলেন, মুমিনদের কাজ হলো চেষ্টা-সাধনা করে যাওয়া, সফলতা দিবেন তো আল্লাহ। কাজে সফলতা আসল কি আসল না, এই প্রশ্ন আল্লাহ তাআলা করবেন না। তিনি বান্দার চেষ্টা, সাধনা ও মনের বাসনা দেখবেন। মুমিনরা দুনিয়াতে বিনিময় পেতে নয়, বরং পরকালের চিরস্থায়ী জীবন এবং রেজায়ে মাওলার উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই কাজ করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী নবগঠিত রাজশাহী আহবায়ক কমিটির নেতাকর্মীদের প্রতি জমিয়তের মহান লক্ষ্য-উদ্দেশ্য আল্লাহর জমিনে আল্লাহর নেজাম প্রতিষ্ঠাকে সামনে রেখে ত্যাগী মানসিকতা নিয়ে দলীয় যে কোন নির্দেশনা দায়িত্ববোধ ও আন্তরিকতার সাথে সম্পন্ন করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, জমিয়ত জ্বালাও পোড়াও, ভাঙচুর ও সংঘাতে বিশ্বাসী নয়। জমিয়ত শৃঙ্খলা ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে ইনসাফপূর্ণ, সহনশীল ও সম্প্রীতিপূর্ণ সমাজ গড়তে চায়। জমিয়ত দেশের সকল স্তরে সুবিচার প্রতিষ্ঠা করতে চায়। জমিয়ত দেশ ও জাতির স্বার্থ রক্ষায় অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে।

মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী বলেন, জমিয়ত ঈমান-আক্বিদা, ইবাদত-বন্দেগীর পাশাপাশি সমাজ, রাষ্ট্র ও মানবাধিকার নিয়েও সোচ্চার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। পাশাপাশি জমিয়ত বিশ্বের যে কোন প্রান্তের নিপীড়িত আর্তমানবতার পক্ষেও সোচ্চার ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। এ পর্যায়ে তিনি রোহিঙ্গা, কাশ্মীর, আসাম ও ফিলিস্তিন ইস্যুর উদাহরণ দেন।

মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী উপস্থিত নেতৃবৃন্দ ও উলামায়ে কেরামকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনাদের মনের নিয়্যাত, আগ্রহবোধ এবং দ্বীনের জন্য ত্যাগের বাসনা মহান আল্লাহ দেখছেন। এর উত্তম বিনিময় তাঁর কাছে অবশ্যই পাবেন। কারণ, জমিয়তের কোন নেতাকর্মী জাগতিক কোন বাসনার নিয়্যাতে দলের জন্য কাজ করেন না। বরং তাদের নিয়্যাত থাকে একমাত্র আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীনকে যিন্দা করা এবং রেজায়ে মাওলা অর্জন।

সবশেষে আখেরী মুনাজাতের মাধ্যমে বৈঠক শেষ হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.