Home রাজনীতি সরকারের আর্থিক প্রণোদনা ‘শুভঙ্করের ফাঁকি’: জন আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ

সরকারের আর্থিক প্রণোদনা ‘শুভঙ্করের ফাঁকি’: জন আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ

মজিবুর রহমান মন্জু।

সরকারের তরফ থেকে গত ৫ এপ্রিল ঘোষিত ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনাকে নতুন রাজনৈতিক উদ্যোগ জন আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ ‘শুভঙ্করের ফাঁকি’ বলে উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। একইসঙ্গে সম্প্রতি হঠাৎ করে গার্মেন্টস খোলার সিদ্ধান্ত নিয়ে, আবার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তা পরিবর্তন করে কয়েক লাখ শ্রমিককে ‘রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলার’ কর্মকাণ্ডকে দায়িত্বহীন হিসেবে অভিহিত করে এর জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

আজ মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) সংগঠনটির সমন্বয়ক মজিবুর রহমান মঞ্জু স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ব্যাংকের মাধ্যমে নির্দিষ্ট শিল্প আর সেবা খাতে হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যাংক ঋণ প্রদান কীভাবে লাখ লাখ শ্রমিকের চাকরির নিরাপত্তা দেবে সেটা অস্পষ্ট। এটা মনে হচ্ছে ঋণ খেলাপিদের সুবিধা দেওয়ার পরোক্ষ প্রণোদনা।

বলা হয়, দুই কোটি শিক্ষিত বেকার যুবক এবং প্রায় ছয় কোটি প্রান্তিক কর্মজীবীর জীবিকার কোনও নিরাপত্তা এই তহবিলে নেই। করোনা সংকটে রাষ্ট্রের যে খাত সবচেয়ে বেশি অসহায়ত্বের পরিচয় দিয়েছে সেই স্বাস্থ্য খাতের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কোনও বরাদ্দ নেই। নেই ডাক্তার, নার্স অথবা স্বাস্থ্যকর্মীদের ঝুঁকি ভাতা ও নিরাপত্তার কোনও আয়োজন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, কয়েকদিন আগে কোনও গভীর মূল্যায়ন ছাড়াই হঠাৎ করে গার্মেন্টস খোলার সিদ্ধান্ত নিয়ে, আবার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তা পরিবর্তন করে কয়েক লাখ শ্রমিককে ‘রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলার’ যে ন্যাক্কারজনক কাজ করা হয়েছে তার নিন্দা জানানোর কোনও ভাষা নেই।

জন আকাঙ্ক্ষার পক্ষ থেকে শিল্প এবং বাণিজ্য মন্ত্রীর দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য আর বিজিএমইএ নেতৃত্বের অতি লোভাতুর আচরণ এজন্য দায়ী বলে তাদের পদত্যাগ দাবি করা হয়।

যে সব গার্মেন্টস মালিক দুঃসহ কষ্ট দিয়ে শ্রমিকদের কাজে যোগ দেওয়ার জন্য জোর করে ডেকে এনেছিলেন, তাদেরকে চিহ্নিত করে বিচারের দাবিও জানায় সংগঠনটি।

বিজ্ঞপ্তিতে শ্রমিকদের মার্চ মাসের বকেয়া বেতন আগামী ১০ এপ্রিলের মধ্যে স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুভাবে পরিশোধের দাবি জানানো হয়। – বিজ্ঞপ্তি।