Home অন্যান্য খবর মুফতি জাকিরের উদ্যোগে আলেমদের মাঝে বোয়ালমারি উলামা পরিষদের নগদ অর্থ বিতরণ

মুফতি জাকিরের উদ্যোগে আলেমদের মাঝে বোয়ালমারি উলামা পরিষদের নগদ অর্থ বিতরণ

জমিয়ত নেতা মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমীর উদ্যোগে ফরিদপুরের বোয়ালমারি উলামা পরিষদের ব্যবস্থাপনায় গতকাল উপজেলার অসচ্ছ্বল আলেমদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়।

উম্মাহ প্রতিবেদক: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় অর্থসম্পাদক, ফরিদপুর জেলা সহসভাপতি ও রাজধানীর জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমীর সার্বিক উদ্যোগে ফরিদপুর বোয়ালমারী উপজেলা উলামা পরিষদের ব্যবস্থাপনায় চলমান করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে দীর্ঘ চার মাস যাবত চাকুরি ও কর্মহীন হয়ে পড়া বোয়ালমারী উপজেলার অসচ্ছ্বল আলেমদের মাঝে নগদ আর্থ সহায়তা ও ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

গতকাল (২৮ জুন) রোববার বোয়ালমারী উপজেলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত আলেমদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এ উপলক্ষে এক উলামা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেছেন বোয়ালমারি উপজেলা উলামা পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা ও কেন্দ্রীয় জমিয়তের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য হাফেজ মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বোয়ালমারী উপজেলা উলামা পরিষদের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় জমিয়তের অর্থসম্পাদক মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বোয়ালমারি উপজেলা উলামা পরিষদের সেক্রেটারী ও ফরিদপুর জেলা জমিয়তের প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা আনোয়ারুল করীম, পৌরসভা উলামা পরিষদের সভাপতি ও বোয়ালমারি জমিয়তের সেক্রেটারী মাওলানা মুহাম্মদ ইলিয়াস, পৌরসভা উলামা পরিষদের সেক্রেটারী মুন্সী মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, বোয়ালমারি উপজেলা উলামা পরিষদের সহসভাপতি হাফেজ মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান, মাওলানা আব্দুল হালিম, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফেজ মুহাম্মদ আনোয়ার, অর্থসম্পাদক হাফেজ মাওলানা মোস্তফা কামাল।

আরও পড়তে পারেন-

আল্লাহর দীদার লাভের সহজ উপায়!

সুদের কুফল ও ক্ষতিকর প্রভাব

পরামর্শের সাথে কাজ করার বহুবিধ উপকারিতা

করোনাভাইরাস: জনসচেতনতাই বড় প্রতিষেধক

মুসলিম নারী প্রতিভা যুগে যুগে

বোয়ালমারি উপজেলা উলামা পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা হাফেজ মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমীর পক্ষে নগদ অর্থ সহায়তার খাম আলেমদের হাতে তুলে দিচ্ছেন।

উপস্থিত ছিলেন- মাওলানা মুনির হোসাইন, হাফেজ শেখ সাদী, মুফতি নজরুল ইসলাম, মাওলানা শামসুল হক, মাওলানা মুহাম্মদ ইবরাহীম, মাওলানা মুহাম্মদ আকরাম, মাওলানা ইদরিস, মাওলানা রফিক, মাওলানা আব্দুল মান্নানসহ শতাধিক উলামায়ে কেরাম।

সভায় উপজেলার অসচ্ছ্বল ও সঙ্কটে থাকা আলেমদের একটা তালিকা তৈরি করা হয়। তালিকা অনুযায়ী গতকাল সভায় উপস্থিত আলেমদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়। তালিকার অন্যান্যদেরকে পরবর্তীতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অর্থ সহায়তা পৌঁছিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় এবং শনিবার দিনভর বোয়ালমারির আরো কিছু আলেমের বাড়ি বাড়ি গিয়ে অর্থ সহায়তা ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী। কারণ, সামাজিক মর্যাদার কারণে যারা প্রকাশ্যে অর্থ সহায়তা ও ত্রাণ গ্রহণে বিব্রতবোধ করবেন বলে অনুমান করা গেছে, তাদেরকে পৃথক পৃথকভাবে বাড়ি বাড়ি গিয়ে সংগোপনে অর্থ ও ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়। মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী জানিয়েছেন, সোম ও মঙ্গলবারও তিনি এভাবে আরো কিছু আলেমকে অর্থ ও ত্রাণ সহায়তা দিবেন।

মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমীর মানবিক এই উদ্যোগের প্রতি বোয়ালমারির উলামায়ে কেরাম ও সর্বস্তরের বিশিষ্টজনরা ভূয়সী প্রশংসা করেন। মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী বোয়ালমারী উলামা পরিষদ ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতৃবৃন্দের প্রতি এই মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে সহযোগিতা করায় বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বোয়ালমারি উপজেলা উলামা পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা হাফেজ মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন উম্মাহ ২৪ ডট কমে’কে জানান, করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ প্রায় চার মাস লাগাতার কর্মহীন হয়ে পড়ায় বেশ কিছু আলেম নিদারুণ অভাবে পরিবারকে নিয়ে কষ্টকর জীবন যাপন করলেও লজ্জ্বায় কারো কাছে ত্রাণ চাইতে পারছিলেন না। তাই এ রকম মধ্যবিত্ত ও অসচ্ছ্বল আলেম পরিবারের কথা ভেবে মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী মানবিক সহায়তা কর্মকাণ্ডের যে উজ্জ্বল উদাহরণ তৈরি করেছেন, এ জন্য আমরা সকলে গর্বিত। মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী শুধু একান্ত ধর্মীয় বিষয়েই কাজ করেন এমন নয়। বরং তিনি যে কোন সঙ্কটময় সময়ে নিজের এলাকার মানুষদের পাশে দাঁড়ান, মানবিক সহযোগিতা নিয়ে হাজির হন। যে কোন উৎসব, আয়োজন ও সুখে-দু:খে মুফতি জাকির সব সময় সহযোগিতা নিয়ে হাজির হয়ে যান। তিনি আলেম সমাজের মাঝে এক গৌরবোজ্জ্বল উদাহরণ তৈরি করে যাচ্ছেন।

মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী জানান, আলহামদুলিল্লাহ, আমার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা ও উদ্যোগে যদি কিছু আলেম পরিবারের দু:খ-কষ্ট কিছুটাও লাঘব হয়, নিজেকে ধন্য ভাববো। এ ধরনের মানবিক কাজে বোয়ালমারীর আলেম সমাজের কাছ থেকে আমি আন্তরিকতাপূর্ণ ব্যাপক সহযোগিতা পেয়ে থাকি। গতকালও উলামা পরিষদের সার্বিক সহযোগিতার কারণে নগদ অর্থ সহায়তা কার্যক্রমটি অত্যন্ত সুন্দরভাবে শেষ করা সম্ভব হয়েছে।

মুফতি জাকির জানান, এধরণের মানবিক সহায়তা কার্যক্রম বোয়ালমারীসহ ফরিদপুরের বিস্তির্ণ এলাকায় পরিচালনার জন্য আমি রাত-দিন কাজ করে যাচ্ছি। যতদিন স্বাভাবিক পরিস্থিতি আসবে না, ততদিন আমি আমার সীমিত সাধ্যের মধ্যে আলেম সমাজ নয়, বরং সাধারণ দু:খী মানুষের পাশে থাকতে কাজ করে যাব, ইনশাআল্লাহ। আমার নিজ এলাকার অসচ্ছ্বল ও গরীব মানুষ কষ্টে থাকলে তো কোনভাবেই নিশ্চিন্ত থাকা যায় না। এলাকার মানুষদের সুখে-দু:খে তাদের পাশে থাকাই আমার স্বপ্ন এবং এটাই ইসলামের শিক্ষা। । আমি আশা করি সমাজের অন্যান্য সমর্থবানগণও এই মানবিক সংকটে এগিয়ে আসবেন এবং দুর্দশাগ্রস্ত মানুষগুলোর কষ্ট কমাতে চেষ্টা করবেন।

মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমী আরো বলেন, মানুষ সমাজবদ্ধ ও বুদ্ধিমান প্রাণী। মানুষের দায়িত্ব পরস্পরের প্রয়োজনে, অভাবে ও যে কোন সংকটে পাশে দাঁড়ানো এবং সহযোগিতার হাত প্রসারিত করা। এটা করতে না পারলে মানুষ হওয়ার স্বার্থকতা থাকে না। ইসলাম সবসময় মানবিক সেবামূলক কাজে অত্যন্ত উৎসাহিত দিয়ে থাকে। এ কারণেই ইসলামে বার বার দান-সদক্বা, হাদিয়া প্রদান, আত্মীয়তার সম্পর্ক বজায় রাখা, গরীব-দু:খীদের সহযোগিতা করা এবং প্রতিবেশিদের খোঁজ খবর রাখতে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে অল্প আয়ের খেটে খাওয়া, দিনমজুর, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী অনেকেই দীর্ঘ দিন বেকার থাকার কারণে নিদারুণ কষ্টে দিনাতিপাত করছেন। এমন অনেকে আছেন, সামাজিক মর্যাদার কারণে লজ্জায় নিজেদের কষ্টের কথা প্রকাশও করতে পারছেন না। তাই এমন সঙ্কটময় সময়ে সমাজের যারা আর্থিক সমর্থবান, সকলে সহযোগী হয়ে এই সংকটগ্রস্ত মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ালে অনেকের দিনগুজরানের কষ্ট সহজে লাঘব হয়ে যায়।

উম্মাহ২৪ডটকম:এমএমএ

উম্মাহ পড়তে ক্লিক করুন-
https://www.ummah24.com

বন্যার্ত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে আহ্বান জানালেন শায়েখ জিয়া উদ্দিন