Home সোশ্যাল মিডিয়া রোহিঙ্গাদের জন্য কেন এই ভিআইপি বন্দোবস্ত?

রোহিঙ্গাদের জন্য কেন এই ভিআইপি বন্দোবস্ত?

ছবি- সংগৃহীত।

।। এন আফরোজ রোজী ।।

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে দেবার উদ্যোগ জোরালো করার পরিবর্তে সরকার তাঁদের জন্য হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে স্থায়ী বাড়ী-ঘর সহ অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়ে জোরেশোরে কাজ করে যাচ্ছে। এর অংশ হিসাবে প্রাথমিক ভাবে উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি আশ্রয়শিবির থেকে এক লাখ রোহিঙ্গাকে মেঘনা নদী ও বঙ্গোপসাগরের মোহনায় অবস্থিত ভাসানচরে পাঠাতে চায় সরকার।

এর অংশ হিসেবে ২ জন নারীসহ ৪০ জনের একটি রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদলকে ভাসানচরের অবস্থা সরেজমিনে দেখানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়। গত শনিবার ভোররাতে উখিয়া ট্রানজিট পয়েন্ট থেকে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে প্রতিনিধিদলটিকে প্রথমে চট্টগ্রাম নেওয়া হয়। সেখান থেকে দুপুরে নৌবাহিনীর জাহাজে করে দলটি ভাসানচরে পৌঁছায়। রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের ভাসানচরের স্থাপনা ও অবকাঠামোগুলো ঘুরিয়ে দেখানো হয়।

রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদলের একজন সদস্য ফোনে সংবাদ মাধ্যমকে জানান ‘আমরা সবাই গাড়িতে করে ভাসানচরে বিভিন্ন অবকাঠামো ও এলাকা ঘুরে দেখেছি। সাগরের বুকে জেগে ওঠা এই চরে গড়ে তোলা স্থাপনা ও অবকাঠামোগুলো সহ যা দেখেছি সবই ভালো লেগেছে। এখানে আমাদের খুব ভালো আপ্যায়নও করানো হচ্ছে। এখানে নিরাপত্তার পাশাপাশি মনোমুগ্ধকর পরিবেশ রয়েছে।’

আরও পড়তে পারেন-

মিয়ানমার নেত্রী অং সাং সুচি একবার বলেছিলেন রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনের ব্যাপারে বাংলাদেশের আগ্রহের ঘাটতি আছে। কারণ, বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংগঠন রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশকে বিরাট অংকের অর্থ সহায়তা দিয়ে আসছে। তাই এটি বাংলাদেশের জন্য একটি ভাল আয়ের উৎস।

সাগরের বুকে জেগে ওঠা মনোরম ভাসানচরে ৩ হাজার ৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে এক লাখ রোহিঙ্গার বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রাম, জাতিসংঘের প্রতিনিধিদের জন্য ভবন ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক সুবিধাসহ বিভিন্ন স্থাপনা তৈরির বাহার দেখে অং সাং সুচি’র কথাই সত্য বলে মনে হচ্ছে। তা না হলে নিজ দেশে অত্যাচারিত হয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ভীরু রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তথাকথিত অথর্ব ‘নেতা’ ‘প্রতিনিধি দল’কে এমন গণতান্ত্রিক-মানবিক-ভিআইপি ট্রিটমেন্ট দেবার আপাতঃ কোন কারণ তো দেখা যায় না।

আমাদের রাজনৈতিক-কূটনৈতিক ব্যর্থতার সাথে গরীব বাংলাদেশের ঘাড়ে চেপে থাকা শরণার্থীদের জন্য এমন আয়েশী আয়োজন রোহিঙ্গাদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকেই আল্টিমেটলি অসম্ভব করে তুলবে। নানা বাহানায় তাঁরা এদেশেই চিরস্থায়ী হয়ে থেকে যাবে।

– এন. আফরোজ রোজী, সমাজ চিন্তক ও শিল্পোদ্যোক্তা।

উম্মাহ২৪ডটকম:এমএ

উম্মাহ পড়তে ক্লিক করুন-
https://www.ummah24.com

দেশি-বিদেশি খবরসহ ইসলামী ভাবধারার গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে ‘উম্মাহ’র ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন।