Home গল্প-উপন্যাস আবরার হত্যার বিচার না হলে দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হবে: আল্লামা কাসেমী

আবরার হত্যার বিচার না হলে দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হবে: আল্লামা কাসেমী

0

উম্মাহ প্রতিবেদক: ভিন্নমত পোষণের কারণে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের দ্বিতীয় বর্ষের মেধাবী শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বীর রুহের মাগফিরাত ও জান্নাতের জন্য বিশেষ দোয়া-মুনাজাত পরিচালনা করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

আজ (১১ অক্টোবর) শুক্রবার বাদ জুমা রাজধানীর জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা’র জামে মসজিদে এই দোয়া-মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে দলের সহসভাপতি শাখুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক, উম্মাহ ২৪ ডট কম সম্পাদক মাওলানা মুনির আহমদ, মাওলানা আহসান হাবীব এবং  ছাত্র, শিক্ষক ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ’সহ প্রায় সহস্রাধিক মুসল্লী শরীক ছিলেন।

দোয়ায় আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী দেশ থেকে সকল প্রকার দুর্নীতি দূরীকরণ, শান্তি, সুশাসন ও সর্বস্তরে ইনসাফ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মহান আল্লাহর গায়েবী মদদ কামনা করেন।

উল্লেখ, গতকাল পল্টনস্থ জমিয়ত কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে জমিয়ত মহাসচিব শুক্রবার বাদ জুমা মসজিদের ইমাম-খতীবদের প্রতি আবরারের জন্য বিশেষ দোয়া-মুনাজাতের আহ্বান জানান।

দোয়া-মুনাজাত শেষে জমিয়ত মহাসচিব উপস্থিত মুসল্লীদের উদ্দেশ্যে বলেন, দেশে বিরাজমান বিশৃঙ্খল ও অরাজক পরিস্থিতি এবং সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তাহীনতা যে কতটা ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে, আবরার হত্যাকাণ্ডের পর এটা দেশবাসীর সামনে উন্মুক্ত হয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশে ভারতীয় আধিপত্যবাদি আগ্রাসন এবং বর্তমান দু:শাসনে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতা যে কীভাবে দিন দিন হুমকির মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে, সেই দিকটাও সকলের সামনে উন্মোচিত হয়েছে।

তিনি বালেন, দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্বকে সুদৃঢ় রাখার পাশাপাশি সর্বস্তরে শান্তি-শৃঙ্খলা ও মানুষের নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার লক্ষে অবশ্যই আবরার হত্যাকারীদেরকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

আল্লামা কাসেমী বলেন, দেশের পক্ষে ফেসবুকে লেখা একটি স্ট্যাটাসের জন্য কাউকে নিজ দেশের মানুষের হাতে এভাবে জীবন দিতে হবে, এটা যেমন কল্পনাতীত তেমনি গভীর উদ্বেগ ও আশনী সংকেতও বহন করে। এটা কোন দেশ? খুনীদের সরকারী দলের তকমা থাকলেই তারা দেশটাকে হিংস্রতার অভয়ারণ্য বানিয়ে ছাড়ে। আর তাই নির্ভয়ে তারা বিরোধী মত ও পথের মানুষদের অবলীলায় হত্যা করতেও দ্বিধা করছে না। বুয়েটের মতো দেশ বাছাই করা শীর্ষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই যদি মতপ্রকাশের স্বাধীনতা না থাকে, তাহলে আমাদের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা কোথায় গিয়ে ঠেকেছে, ভেবে দেখলে সত্যিই হতাশ ও আতংকিত হতে হয়।

দেশপ্রেমিক সাধারণ ছাত্রসমাজ ও শান্তিপ্রিয় জনতার প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়ে জমিয়ত মহাসচিব বলেন, এই মৃত্যু উপত্যাকাকে শান্তিময় করতে আবরার হত্যার প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে সকলে সোচ্চার শামিল হয়ে দেশবিরোধী সকল অপশক্তি ও খুনি চক্রকে উৎখাত করুন। মনে রাখবেন, আবার খুনের বিচার না হলে এবং খুনিরা বেঁচে গেলে, দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বিপন্ন হবে, দেশ আগ্রাসন কবলিত হবে এবং দেশের মানুষ স্বাধীনতা ও নিরাপত্তা হারাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.