Home রাজনীতি নীলফামারী-১ আসনে ২০ দলীয় জোট থেকে মনোয়ান প্রত্যাশী মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দীর...

নীলফামারী-১ আসনে ২০ দলীয় জোট থেকে মনোয়ান প্রত্যাশী মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দীর শক্ত অবস্থান রয়েছে

0
মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী। ছবি- উম্মাহ।

উম্মাহ প্রতিবেদক: আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নীলফামারী-১ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তৎপরতা শুরু হয়ে গেছে। এ আসনে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হতে চান জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম-মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী। এই লক্ষে পুরোদমে  তিনি প্রচার-প্রচারণা  ও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।
জানা গেছে ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী নীলফামারী-১ আসনে তৎকালীন ৪ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত হয়েছিলেন। কিন্তু শেষ মুমূর্তে তার স্থলে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে বেগম খালেদা জিয়ার ভাগ্নে শাহরিন ইসলাম তুহিনকে দেয়া হয়। তিনি জোটের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে সে সময় বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন।  এবারের নির্বাচনে এ আসন থেকে তিনি ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হতে চান। এ লক্ষ্যে তিনি দীর্ঘদিন ধরে প্রচার-প্রচারণা ও গনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নেতা-কর্মীরা জানান, মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী নির্বাচনী এলাকা ডোমার-ডিমলা উপজেলার গরীব-দুঃখী মানুষের আপদে-বিপদে তিনি সব সময় সহযোগিতা ও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে পাশে দাঁড়াতেন। শীত, বন্যা ও ঝড়সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ছুটে যেতেন ত্রাণ নিয়ে। এবং ২০ দলীয় জোটের শরীক দলের নেতা-কমীদের সাথে নিয়মিত মতবিনিময় ও যোগাযোগ করে চলেন সবসময়। পাশাপাশি এলাকার বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডেও নিয়মিত অংশগ্রহণ করতেন। যে কারণে এলাকার তৃণমূল পর্যায়ে মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী খুবই জনপ্রিয় ও পরিচিত একটি মুখ। ভোটারদের কাছেও তিনি অত্যন্ত আস্থাভাজন একজন ব্যক্তিত্ব। ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে তিনি নির্বাচনী প্রতিযোগিতায় নামলে, সহজেই জিতে আসবেন বলে প্রবল আশাবাদী।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম-মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সভাপতি মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী উম্মাহ ২৪ ডটকমকে জানান, নীলফামারী-১ সংসদীয় এলাকায় তার বংশগত ও পারিবাবির ঐতিহ্য রয়েছে। এলাকার মানুষের সুখে-দুঃখে তিনি ও তার পরিবার দীর্ঘ দিন ধরে পাশে  ছিলেন এবং এখনও আছেন। ২০ দলীয় জোট থেকে তাকে মনোনয়ন দেয়া হলে জয়ের বিষয়ে তিনি শতভাগ আশাবাদি। নির্বাচনী জয়ী হলে তিনি এলাকায় সুশাসন, ন্যায় ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি জনসেবায় নিজেকে নিবেদিত করে কাজ করে যাবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.